বিধানচন্দ্র

বিধানচন্দ্রের জীবনের অনেক ঘটনাই আমাদের জানা। বিভিন্ন লোকের স্মৃতিচারণ ও আলাপচারিতাতে তাঁর বেশ কিছু চারিত্রিক বৈশিষ্ট্য ধরা পড়েছে। যেমন ‘ঈশ্বর পৃথিবী, ভালবাসা’ তে শিবরামের জবানবন্দী। শিবরাম একবার পড়লেন খুব টানাটানিতে। তখন দেশবন্ধুও নেই। কি করেন? বিধান রায়ের খুব নাম । কিন্তু এমনি এমনি তো আর যাওয়া যায় না।  অসুস্থতার  ভান করে চিকিৎসা করাতে গেছিলেন বিধান […]

Read More বিধানচন্দ্র

মিনিবাসে রবীন্দ্র ‘পরিক্রমা’

আমার কৈশোরে আমার এক নায়ক ছিলেন। তিনি একজন লেখক, কিন্তু তাঁকে পড়া যেত না, শোনা যেত রেডিওতে। প্রতিদিন রাত দশটায়। পরে জেনেছি আমার মত তাঁর আরো অনেক ভক্ত ছিল। একজন দেবব্রত বিশ্বাস। তরুণ চক্রবর্তী র সঙ্গে আলাপচারিত তে অনুরোধ করেছিলেন, “আমি মারা গেলে আমাকে নিয়ে যে সংবাদ পরিক্রমা লিখবেন প্রণবেশ সেন, সেটি আপনিই পড়বেন।” সংবাদ […]

Read More মিনিবাসে রবীন্দ্র ‘পরিক্রমা’

বড়মামা

বয়েস বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে হারিয়ে যাচ্ছেন আমাদের কিছু প্রিয় মানুষ। খুব ছোটবেলা থেকে যাঁরা আমাদের মাথায় হাত রেখেছিলেন। এমনই একজন আমার বড়মামা। কিছুদিন আগেই যিনি বিদায় নিলেন, রেখে গেলেন বেশ কিছু স্মৃতি।

Read More বড়মামা

কৈশোরের মফস্বলী শীত

এবার ব্যাঙ্গালোরে বেশ ছ্যাঁকছ্যঁকে ভাব। ঠাণ্ডা সেভাবে কোনদিনই পড়ে না, বরং বর্ষাকালে তুলনামূলকভাবে বেশী শীত করে। আমাদের মফস্বলে শীতের প্রকোপ কিন্তু বেশ ভালই ছিল। আমাদের রাজপুরে কালীপুজোর সময় থেকেই বেশ শীতশীত ভাব। ডিসেম্বরের প্রথম সপ্তাহে পরীক্ষা শেষ আর ছুটির শুরু। অভিভাবকরাও তখন এতআড়বুঝো ছিলেন না, দিব্যি খেলতে দিতেন ঐ সময় – নো পড়াশোনা –শুধু খেলা। […]

Read More কৈশোরের মফস্বলী শীত

পুরনো জন্মদিন

নিজের কুষ্ঠি তে লেখা ছিল, আমার জন্মদিন ২০শে নভেম্বর, রাত ২ঃ ৩৩ মিনিটে। সেই উপলক্ষে ছোটবেলাতে জানতুম আমার জন্মতারিখ ২০শে নভেম্বর। সেই অনুযায়ীই পালন হত, বড়দের স্মৃতি অনুযায়ী। মাধ্যমিক পরীক্ষার এডমিট কার্ডে প্রথম দেখলাম, ২১শে নভেম্বর রয়েছে জন্মদিন। ইংরেজি মতে অবশ্য তাই ঠিক, সুতরাং পরবর্তী কালে সর্বসম্মত ভাবে এটাই রয়ে গেছে। তবে জন্মদিনের সবচেয়ে বড় […]

Read More পুরনো জন্মদিন

তাঁর শেষ পরিচয় – পূর্ণতার সঙ্গে

আজ (কোন পঞ্জিকা মতে গতকাল) রবীন্দ্রনাথের মৃত্যুদিন। যে মানুষটি তাঁর ছোটবেলা থেকেই মৃত্যুর সঙ্গে পরিচিত হয়ে চলেছিলেন বারেবার, বহুবছর আগে এই দিনেই মৃত্যুর সঙ্গে তাঁর শেষ পরিচয়।     তাঁর জীবনের মত মৃত্যুর উপলব্ধি আর কারুর হয়েছে বলে জানা নেই। আশ্চর্য, তা সত্ত্বেও তাঁর পথচলা থামেনি। খুব ছোটবেলাতেই মাতা, মাতৃস্বরূপ বৌদি, বাবা, নিজের ছেলে, মেয়ে, […]

Read More তাঁর শেষ পরিচয় – পূর্ণতার সঙ্গে

প্রবাসে ‘প্রভাতে’র আলোর স্পর্শ

১৯৮৩ সাল। সেবছর জুন মাসে ভারতে দু দুটো বড় ঘটনা ঘটেছে, আমরা ইঞ্জিনীয়ার হয়েছি, আর কপিলের ভারত বিশ্বজয় করেছে। এক ‘নতুন প্রভাত’ জাগার সময় হয়েছে। ভাগ্যান্বেষণে আমরাও এসে পড়েছি ব্যাঙ্গালোরে। তখনো জানিনা, এখানে আমাদের জন্যেও এক ‘নতুন প্রভাত’ অপেক্ষা করছে। আমাদের অফিসে তখনো বাঙালীর সংখ্যা বেশী নয়। সেখানে সাত সাত খানি নব্য যুবার আবির্ভাব বেশ […]

Read More প্রবাসে ‘প্রভাতে’র আলোর স্পর্শ